agricultural engineering
Streams – Engineering & Architecture

ভারতবর্ষ জনসংখ্যার দিক থেকে গোটা পৃথিবীর মধ্যে (2011 আদমশুমারি অনুযায়ী) দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে। এই বিপুল জনবহুল দেশে সকলকে সুষম খাদ্যের যোগান দেওয়া এক বিরাট চ্যালেঞ্জ। স্বাধীনতার পরে ভারতবর্ষে খাদ্যের যে সংকট দেখা দিয়েছিল, সঠিক পরিকল্পনা ও প্রযুক্তির উত্তম ব্যবহারের কারণে তা অনেকটাই কমানো গেছে। বর্তমানে খাদ্যের ব্যাপারে ভারত স্বনির্ভর, এমনকি কিছু ক্ষেত্রে উদ্বৃত্ত ফসল বিদেশে রপ্তানি করে বিদেশী মুদ্রাও আমরা অর্জন করছি।

আর এই সাফল্যে যারা প্রধান ভূমিকা নিয়েছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হলেন এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়াররা। ভবিষ্যতে ভারতে খাদ্যের চাহিদাও যেমন বাড়বে তেমনই কৃষি জমির অভাবও দেখা দেবে এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে অধিক পরিমাণ ফসলের যোগান দিতে হবে। তাই বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার ও সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে জমির উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করে কৃষিজ দ্রব্যের চাহিদা ও যোগানের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য এই পেশার গুরুত্ব ক্রমশ বাড়বে। তাই এই পেশার ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং কি?

কৃষিবিজ্ঞান সম্পর্কিত ইঞ্জিনিয়ারিং-এর একটি শাখা হল এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং। এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিংকে বহুক্ষেত্রে এগ্রিকালচার অ্যান্ড বায়োসিস্টেমস ইঞ্জিনিয়ারিং (Agriculture and Bio Systems Engineering)ও বলা হয়। এই বিশেষ শাখার পড়াশোনার মূল বিষয়টি হল কৃষিকার্যকে দক্ষতা এবং কর্মগুণ বৃদ্ধির মাধ্যমে কৃষির উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করে তাকে লাভজনক করে তোলা।

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর সাথে ইঞ্জিনিয়ারিং-এর বিভিন্ন শাখাগুলির সংমিশ্রণ লক্ষ্যনীয়, যেমন মেকানিক্যাল (mechanical), সিভিল (civil), ইলেকট্রিকাল (electrical), ফুড সাইন্স (food science), এনভায়োরমেন্টাল (environmental), সফট্‌ওয়ার (software), এবং কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (chemical engineering); এই বিষয়গুলি কোনো না কোনোভাবে এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর সাথে যুক্ত।

কৃষি প্রতিষ্ঠানের জমি (Land), শ্রমিক (Labour) এবং প্রযুক্তি (Technology) কে ঠিক পদ্ধতিতে ব্যবহার করে খরচ (Costing) কমিয়ে এবং লাভ বৃদ্ধি করাই হল এটাই এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারদের আসল লক্ষ্য। কৃষিপ্রধান দেশ ভারতবর্ষে ইঞ্জিনিয়ারিং-এর এই শাখার প্রভাব যথেষ্ট লক্ষ্যনীয়।

কৃষি সংক্রান্ত যন্ত্রের পরিকল্পনা, কৃষিক্ষেত্রের সাশ্রয়ী পরিকল্পনা ও গঠন শেখানো হয়।
এছাড়াও পাওয়ার সাপ্লাই (power supply), যন্ত্রপাতির দক্ষতা, বিভিন্ন মেশিনের ব্যবহার ও তার সুবিধা অসুবিধা, সমস্ত রকমের পরিবেশগত (environmental) এবং দূষণগত সমস্যা জানতে হয়। এখানে বিভিন্ন কৃষি পণ্য (agricultural product) কে সঠিক উপায়ে সংরক্ষণ করার উপায় শেখানো হয়।

কিভাবে পড়ব এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং?

Diploma in Agricultural Engineering

ডিপ্লোমা কোর্স দুই বছরের। যেখানে মোট চারটি সেমিস্টার। ডিপ্লোমা কোর্স করতে গেলে মাধ্যমিক পাশ হওয়াটা দরকার আর 50% নাম্বার থাকা জরুরী। সাধারণত SC, ST বা OBC দের ক্ষেত্রে 5% পর্যন্ত নম্বরের ছাড় দেওয়া হয়।

B.Tech in Agricultural Engineering

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বি.টেক (B.Tech) করার জন্য উচ্চমাধ্যমিক বা এর সমতুল (10+2) পরীক্ষার পরে সর্বভারতীয় প্রবেশিকা পরীক্ষা (JEE Main), রাজ্যভিত্তিক প্রবেশিকা পরীক্ষা (যেমন WBJEE, BCECE, MH CET ) ভারতের বিভিন্ন কলেজে B.Tech করা যায়।

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং ছাড়াও এগ্রিকালচারাল স্টাডিস বিষয়ে B.Sc করা যায়। এই কোর্স সম্পর্কে একটু আলোচনা করা হল –

B.Sc in Agricultural Studies

উচ্চমাধ্যমিক বা এর সমতুল (10+2) পরীক্ষার পরে সর্বভারতীয় প্রবেশিকা পরীক্ষা ICAR দিয়ে ভারতের 74টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন স্নাতক স্তরের কোর্স যেমন B.Sc. (Hons.) Agriculture, B.Sc. (Hons.) Horticulture, B.Sc. (Hons.) Forestry ইত্যাদি করা যায়। মনে রাখতে হবে, অধিকাংশ ক্ষেত্রে এই কোর্সগুলি পড়ার জন্য উচ্চমাধ্যমিকে বায়োলজি এবং কেমিস্ট্রি থাকা বাধ্যতামূলক।

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ কোথায় কোথায় আছে?

ভারতবর্ষে এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর সরকারি কলেজ 78 টি এবং প্রাইভেট কলেজ 155 টি।
ভারতবর্ষের কিছু বিখ্যাত কলেজের নাম নীচে দেওয়া হল –

• IIT Kharagpur – Indian Institute of Technology.
• The Institutions of Engineers India, Kolkata.
• BIT Sathy – Bannari Amman Institute of Technology.
• IISc Bangalore – Indian Institute of Science.
• Integral University, Lucknow.
• Aditya Engineering College, Surampalem.

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর কোর্স ফি কত?

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা কোর্স ফী হয়। তবে সাধারণভাবে ডিগ্রি কোর্সের জন্য সরকারী প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে কলেজের কোর্স ফী 50 হাজার থেকে 5 লাখ অবধি হতে পারে।
বেসরকারী কলেজের ক্ষেত্রে কোর্স ফি 3 লাখ থেকে 10 লাখ অবধি বা আরো বেশী হতে পারে।

ডিপ্লোমা কোর্সের ফি সাধারণত সরকারী কলেজের ক্ষেত্রে 20,000 থেকে 1 লাখ হতে পারে এবং বেসরকারী কলেজের ক্ষেত্রে কোর্স ফি 2 লাখ থেকে 5 লাখ অবধি বা আরো বেশী হতে পারে।

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ কি কি পড়তে হয়?

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ যে যে বিষয়ের উপর পড়ানো, সেগুলি হল –

• Engineering Mechanics
• Mathematics
• Agricultural Engineering
• Engineering Physics
• Physical Chemistry
• Science of Soils
• Horticulture and Field Crops ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয় পড়তে হয়।

Agricultural Engineering কোর্সের ভবিষ্যৎ কেমন?

সভ্যতার ইতিহাসে শুরু থেকেই কৃষির উৎপত্তি হয়েছিল, তারপর থেকেই সময়ের সাথে সাথে কৃষির উন্নতি শুরু হয়েছে। উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহারে বর্তমান সময়ে কৃষিজ শিল্পের প্রভুত উন্নতি সাধন হয়েছে।

শুধু তাই নয়, ভারতের মত কৃষি প্রধান দেশে বহু মানুষের (58%) জীবিকার প্রধান উৎস কৃষির সাথে সম্পর্ক যুক্ত। সঠিক পরিকাঠামো এবং প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহারই ভারতের মত উন্নয়নশীল দেশের কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির একমাত্র হাতিয়ার। তাই বলা যায়, আগামীদিনে কৃষি ক্ষেত্রের সাথে যুক্ত কর্মীদের ভবিষ্যৎ যথেষ্ট উজ্জল।

আমরা এবার কয়েকটি বিখ্যাত কোম্পানির নাম জেনে নেব, যারা কৃষিজাত পণ্য শিল্পের মধ্যে ভারতে অগ্রগণ্য।

• Bombay Burmah Trading Corporation Ltd
• Kaveri Seed Company Ltd
• Poabs Organic Estates
• Rallis India Limited
• Lemken India Agro Equipments Private Limited ইত্যাদি

Agriculture সংক্রান্ত কোর্স করে কি ধরনের কাজ পাওয়া যায়?

• Agriculture Research Scientist
• Soil and Plant Scientist
• Conservation Scientist and Forester
• Agriculture and Irrigation Engineer
• Faculty in College / University ইত্যাদি।

এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ে কি সরকারি চাকরি পাওয়া যায়?

অবশ্যই সরকারী চাকরি পাওয়া যায়। নিম্নলিখিত Sector গুলিতে Government Job পাওয়া যেতে পারে। যেমন,

• UPSC- IFS (Indian Forest Services)
• IBPS Specialist Officer
• Food Corporation of India (FCI)
• National Bank for Agriculture and Rural Development (NABARD)
• Staff Selection Commission (SSC)
• Indian Council of Agricultural Research (ICAR) ইত্যাদি।

পর্ব সমাপ্ত!

careerbondhu-telegram-channel

বিশেষ দ্রষ্টব্য

  • এই নিবন্ধে ব্যবহৃত তথ্য ইন্টারনেট, সংবাদ পত্র, পত্রিকা, প্রকাশিত রিপোর্ট ইত্যাদি থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। নিবন্ধে ব্যবহৃত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কোর্সের নাম ইত্যাদি শুধুমাত্র শিক্ষামূলক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়েছে। এই ব্যাপারে আরো জানার জন্য এই পাতাটি পড়ে নেবার অনুরোধ রইল → Disclaimer
  • নিবন্ধটি আমরা যথাসম্ভব ত্রুটি মুক্ত রাখার চেষ্টা করেছি, তথ্যে কোনরূপ ত্রুটি চিহ্নিত হলে তা অনিচ্ছাকৃত ত্রুটি হিসাবে গণ্য হবে, চিহ্নিত ত্রুটি এই পাতা থেকে তা আমাদের জানানো যেতে পারে → Report an error
error: Content is protected !!